চিত্র বিচিত্রছোট পর্দার খবরটেলিভিশননাটকবড় পর্দার খবরবিখ্যাত ব্যাক্তিবিদেশী কলামভিন্ন খবরভিন্ন জীবনরেডিওলাইফ স্টাইল ও ফ্যাশনশোক

চলে গেলেন অভিনেতা ইরফান খান

ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় এই অভিনেতা আর নেই

ডেক্স রিপোটঃ– চারদিন আগে মাকে হারিয়েছেন। এবার নিজেই চিরবিদায় নিলেন ইরফান খান। ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় এই অভিনেতা আর নেই। আজ বুধবার (২৯ এপ্রিল) মুম্বাইয়ের কোকিলাবেন ধিরুবাই আম্বানি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৫৩ বছর।

কোলন সংক্রমণের কারণে হাসপাতালের আইসিইউতে নেওয়া হয়েছিল ইরফানকে। তার মুখপাত্র জানিয়েছিলেন, চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে আছেন তিনি। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। তার পাশে ছিলেন স্ত্রী সুতপা সিকদার ও দুই ছেলে বাবিল ও আয়ান খান।
২০১৮ সালের মে মাসে নিওরোএন্ডোক্রাইন টিউমারে আক্রান্ত হন ইরফান খান। উন্নত চিকিৎসার জন্য লন্ডনে অনেকটা সময় ছিলেন তিনি।
অসুস্থতার সঙ্গে লড়াই নিয়ে কিছুদিন আগে আবেগঘন কথা লিখেছিলেন ইরফান, ‘‘আমার বাজি ছিল অন্যরকম। দ্রুতগতির একটি ট্রেনে ঘুরছিলাম। স্বপ্ন, পরিকল্পনা, আকাঙ্ক্ষা ও লক্ষ্য ছিল। এগুলোকে ঘিরে খুব ব্যস্ত ছিলাম। হঠাৎ কেউ আমার কাঁধে টোকা দিলো এবং আমি পিছু ফিরে তাকালাম। তিনি টিকিট কালেক্টর। আমাকে জানালেন, ‘আপনার গন্তব্য চলে এসেছে। অনুগ্রহ করে নামুন।’ আমি দ্বিধাগ্রস্ত হয়ে বললাম, ‘না, না। আমার গন্তব্য আসেনি।’ টিকিট কালেক্টর বললেন, ‘না, এটাই আপনার গন্তব্য।’ কখনও কখনও এমন হয়।

’’
গত ২৫ এপ্রিল ইরফানের মা সাইদা বেগম রাজস্থানে মারা যান। সারাভারতে আরোপিত অবরোধের (লকডাউন) কারণে তাকে সামনে থেকে শেষবারের মতো দেখা হয়নি তার। ভিডিও কলের মাধ্যমে মাকে শেষ শ্রদ্ধা জানান তিনি। মায়ের যাওয়ার চারদিন পর ছেলেও চলে গেলেন না ফেরার দেশে।
এ বছর ‘অ্যাংরেজি মিডিয়াম’ ছবির মাধ্যমে বড় পর্দায় ফিরেছিলেন ইরফান। তবে এর প্রচারণা করতে পারেননি তিনি। এটি তারই অভিনীত অভাবনীয় ব্যবসাসফল ছবি ‘হিন্দি মিডিয়াম’-এর সিক্যুয়েল।
লকডাউন ঘোষণার আগে মুক্তি পাওয়া ‘অ্যাংরেজি মিডিয়াম’-এ মেয়ের ইচ্ছেপূরণের জন্য সব প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে যাওয়া একজন অবুঝ বাবার চরিত্রে ইরফানের অভিনয় প্রশংসিত হয়েছে। লকডাউনের কারণে সিনেমা হলে থেমে যায় ছবিটি। এরপর এটি মুক্তি পায় অনলাইনে। হোমি আদাজানিয়ার পরিচালনায় এতে আরও অভিনয় করেছেন কারিনা কাপুর, রাধিকা মদন ও দীপক দোবরিয়াল।
ইরফানের সেরা কাজের তালিকায় অন্যতম বিশাল ভরদ্বাজের ‘মকবুল’ (২০০৩) ও সুজিত সরকারের ‘পিকু’ (২০১৫)। ২০১২ সালে তিগমাংশু ধুলিয়ার ‘পান সিং তোমর’ ছবিতে দারুণ অভিনয়ের সুবাদে ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তিনি।
হলিউডের বেশ কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করে আন্তর্জাতিক খ্যাতি পেয়েছেন ইরফান খান। এ তালিকায় উল্লেখযোগ্য— ড্যানি বয়েলের ‘স্লামডগ মিলিয়নিয়ার’ (২০০৮), রন হাওয়ার্ডের ‘ইনফারনো’ (২০১৬) এবং অ্যাঙ লি পরিচালিত ‘লাইফ অব পাই’ (২০১২)।
বাদ যায়নি বাংলাদেশের ছবিও। মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর পরিচালনায় ‘ডুব’ ছবির প্রধান চরিত্রে দেখা গেছে তাকে। এর ইংরেজি নাম ‘নো বেড অব রোজেস’। এতে বাংলাদেশের কিংবদন্তি সাহিত্যিক ও নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের জীবনের ছায়া পাওয়া যায় তার জাভেদ চরিত্রে। এটি সহ-প্রযোজনা করেছিলেন তিনি।
তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া, এনডিটিভি

Show More
Check Out my Gig's এ ক্লিক করুন সেবা নিন!

Related Articles

error: এই ওয়েবসাইটের সকল তথ্য কপি প্রটেক্টেড, ধন্যবাদ প্রকাশক সুন্দরবন টাইমস
Close