রাজনীতি

বিএনপির সুরে উদ্ভট কথা বলছেন মাহবুব তালুকদার : কাদের

ডেক্স রিপোর্ট: নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বিএনপির সুরে আজগুবি ও উদ্ভট কথা বলছেন বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।সোমবার (২৭ জানুয়ারি) সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে প্রেস ব্রিফিংয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এমন মন্তব্য করেন।নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, নির্বাচন কমিশনে সমন্বয় ও লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই- এমন প্রশ্নে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা ইলেকশন কমিশনের ইন্টারনাল ম্যাটার। সেখানে একজন কমিশনার ভিন্নমত পোষণ করতেই পারেন। কিন্তু তিনি কথায় কথায় যেভাবে তাদের ঘরের বিষয়, ইন্টারনাল প্রসিডিউর, বাইরে নিয়ে আসছেন সেটা অবশ্য সমর্থনযোগ্য নয়।’

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের অভ্যন্তরে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই- এ রকম আজগুবি কথা জীবনে কোথাও আমরা শুনিনি। পৃথিবীর কোনো গণতান্ত্রিক দেশে এমনকি আধা-গণতান্ত্রিক দেশেও এ রকম কথা কেউ শোনেনি। নির্বাচন কমিশনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বিষয়টা আবার কী? এটা একটি আজগুবি, উদ্ভট কথা। এ ধরনের কথা তিনি (মাহবুব তালুকদার) কীভাবে বলছেন, আমি জানি না।’

কাদের বলেন, ‘তিনি ভিন্নমত পোষণ করতে পারেন। কিন্তু তার বক্তব্যের সুর ইদানীং …বিএনপি যে সুরে কথা বলছে, একই সুরে মাহবুব তালুকদারও কথা বলছেন। মনে হয় তিনি একটা পক্ষ নিয়ে এ ধরনের বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন।’

‘চারদিন পর নির্বাচন। এ সময়ও অনেক প্রার্থী গ্রেফতারি-হয়রানির চাপে রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে’- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘সেটা তো তারা নির্বাচন কমিশনকেও জানাতে পারেন। সরকারের পক্ষ থেকে এখন পুলিশকে এ ধরনের নির্দেশ দেয়ার কোনো প্রশ্নই ওঠে না। নির্বাচন-সংক্রান্ত দায়িত্বে যে পুলিশ সদস্য নিয়োজিত রয়েছেন তারা এখন কমিশনের হুকুমেই চলে। কমিশনই এক্ষেত্রে নির্দেশ দিতে পারে।‘কিন্তু বিএনপি কিছু কিছু অভিযোগ আনছে একেবারেই অন্ধকারে ঢিল ছোড়ার মতো। তারা তথ্য-প্রমাণ ছাড়াই কথা বলছেন। তথ্য-প্রমাণ তো দিতে পারছেন না। কাকে হয়রানি বা বিনা কারণে গ্রেফতারি পরোয়ানা দেয়া হয়েছে- এসব অভিযোগের পক্ষে তো তারা কোনো যুক্তি দিতে পারছেন না।’

‘সরকারি দলেরই কিছু বিদ্রোহী প্রার্থী বহাল রয়েছে’- এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের এ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এটা আমাদের ওপর ছেড়ে দিন। এগুলো আমাদের ইন্টারনাল ম্যাটার। এটা আমরা কতটা হজম করব, কতটা ছেড়ে দেব… আমাদের পার্টির ইন্টারনাল ডিসিপ্লিনারি কমিটি আছে, তারা এ বিষয়টা দেখছেন।’

ইভিএমের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বিএনপি এ বিষয়টা আদালত পর্যন্ত নিয়ে গেছে এবং আদালত সেটা খারিজ করে দিয়েছেন। নির্বাচনের আর চারদিন বাকি। এ সময় ইভিএম না অ্যানালগ- এটা ঠিক করার সময় আর নেই। এখন নির্বাচন কমিশন ইভিএমেই রয়েছে গেছে এবং ইভিএম সিস্টেমেই নির্বাচন হবে। এটা মেনে নিয়েই সবার এগিয়ে আসা উচিত।’খালেদা জিয়ার বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আগে আমরা জানতে চাই বিএনপির বিশেষ আবেদনটা কী? সেটা জানার পর আমরা কথা বলব।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক আদালতের রায়ের বিষয়ে আওয়ামী লীগের এ সাধারণ সম্পাদক বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে গাম্বিয়া সৎ সাহস দেখিয়েছে। তবে হেগের আদালতের রায় মিয়ানমার কতটা মানবে তা পর্যবেক্ষণ করে প্রতিক্রিয়া জানানো হবে। আমরা মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়াতে কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রাখব।আরো পড়ুন

Tags
Show More

Related Articles

error: Do not copy any text from this website. Copyrighted Sundarbanstimes thanking by Editor
Close