আন্তর্জাতিককরোনা আক্রান্তস্বাস্থ্য তথ্য

সম্পূর্ণ আলাদা হবে চতুর্থ দফার লকডাউন : মোদি

ডেক্স রিপোটঃ- ভারত জুড়ে লকডাউনের মেয়াদ আবারও বাড়ছে বলে নিশ্চিত করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে তিনি বলেন চতুর্থ দফার এই লকডাউন আগের গুলোর চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা হবে। আর এ সংক্রান্ত নিয়মকানুন ১৮ মে’র আগে ঘোষণা করা হবে বলে জানান তিনি। সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে এদিন ২০ লাখ কোটি রুপির অর্থনৈতিক প্যাকেজ ঘোষণা করেন মোদি।

করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে গত ২৫ মার্চ থেকে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ওই সময়ে খাবার ও ওষুধ কেনার মতো জরুরি প্রয়োজন ছাড়া নাগরিকদের ঘরের বাইরে বের হতে নিষেধ করা হয়। ২১ দিনের মেয়াদ শেষের পর দ্বিতীয় দফায় তা আবারও বাড়ানো হয়। পরে আরও এক দফা বাড়ানোর পর আগামী ১৭ মে বর্তমান মেয়াদের লকডাউন শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। তবে সম্প্রতি কিছু কিছু ক্ষেত্রে লকডাউন শিথিল করা হয়েছে। গত সোমবার মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে নরেন্দ্র মোদির এক বৈঠকের পর লকডাউন বাড়ানোর ইঙ্গিত দেয় এনডিটিভি।

মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে সর্বশেষ ভাষণে নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘বিশেষজ্ঞরা বলছেন করোনা থাকার জন্য এসেছে। কিন্তু আমরা করোনাকে আমাদের জীবন নিয়ন্ত্রণ করতে দিতে পারি না। আমাদের এর সঙ্গেই বাঁচতে হবে। আমাদের মাস্ক পরতে হবে, শারিরীক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে কিন্তু স্বপ্ন বাদ দেওয়া যাবে না।’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘চার নাম্বার লকডাউনের নিয়ম সম্পূর্ণ আলাদা হবে আর এগুলো রাজ্য সরকারের পরামর্শেই নির্ধারণ করা হবে। নতুন পদক্ষেপগুলো ১৮ মে’র আগেই ঘোষণা করা হবে। আমরা লড়াই চালিয়ে যাবো আর নতুন নিয়ম মেনে সামনে এগিয়ে যাবো।’

নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘আমাদের চ্যালেঞ্জ দুই ধরনের- রোগের সংক্রমণের হার কমাতে হবে এবং পর্যায়ক্রমে মানুষের কাজকর্মের পরিমাণ বাড়াতে হবে।’ তিনি বলেন, আমরা যদি ধারাবাহিকভাবে লকডাউন তুলে নেওয়ার কথাও ভাবি তাহলে আমাদের জোরালোভাবে মনে রাখতে হবে যে যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা টিকা বা ওষুধ না পাচ্ছি ততক্ষণ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সবচেয়ে বড় অস্ত্র শারিরীক দূরত্ব বজায় রাখা।

উল্লেখ্য, ভারতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৭০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে দুই হাজার ২৯৩ জনের। ভারতে আক্রান্তদের মধ্যে পাঁচ ভাগের এক ভাগই ঘনবসতি পূর্ণ মুম্বাই, দিল্লি, আহমেদাবাদ ও পুনের মতো এলাকায় শনাক্ত হয়েছে। এই শহরগুলো দেশটির অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডেরও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র।

নিচের যেকোন একটি অপশন নির্বচান করুন!

Show More
Check Out my Gig's এ ক্লিক করুন সেবা নিন!

Related Articles

error: এই ওয়েবসাইটের সকল তথ্য কপি প্রটেক্টেড, ধন্যবাদ প্রকাশক সুন্দরবন টাইমস
Close